শীতলক্ষ্যা তীরে পুরনো বটগাছ উপড়ে ফেলার প্রতিবাদে নিন্দা

নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীর পুরনো বটগাছ উপড়ে ফেলার প্রতিবাদে নিন্দা জানিয়েছে আন্দোলনকারীরা। শনিবার (২৩ মার্চ) ৩নং মাছ ঘাট এলাকায় এক বিবৃতিতে শীতলক্ষ্যা পাড়ের গাছ রক্ষায় নারায়ণগঞ্জবাসী সংগঠনের সমন্বয়কারী আরিফ বুলবুল ও সদস্য সচিব শুভ দেব এক যৌথ বিবৃতিতে এই ঘটনার নিন্দা জানান।

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, শীতলক্ষ্যা মাছ ঘাট এলাকার পুরনো বটগাছটি বুল্ডোজার দিয়ে উপড়ে ফেলা হয়েছে। বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে প্রকল্প নির্মাণের নামে আগে একবার গাছটিকে কাটার উদ্যোগ নিলেও আন্দোলনের চাপে পুরোপুরি কাটতে ব্যর্থ হয় তারা। তবে আজ গাছটিকে পুরোপুরি গোড়া থেকে উপড়ে ফেলে নির্মাণাধীন প্রতিষ্ঠান তমা কন্সট্রাকশনের কর্মীরা।

যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, আমরা নারায়ণগঞ্জের মানুষ হিসেবে আমাদের বক্তব্য তুলে ধরেছি। আমরা আমাদের আপত্তির কথা জানিয়েছি। আমরা এক মাস যাবৎ আন্দোলন করলাম। তাদের কার্যালয়ে গেলাম। স্মারকলিপি দিলাম। অথচ তারা আমাদের একটি কথাও শুনলেন না। আমরা গতকাল কাটা গাছগুলোর জায়গায় নতুন চারা গাছ রোপণ করলাম। তারা আজ এসে বুল্ডোজার দিয়ে পুরো গাছটিকে উপড়ে ফেললো। এরকম প্রকৃতিধ্বংসী কার্য সম্পাদন করতে তাদের ন্যুনতম হাত কাঁপলো না। নদী ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে, গাছ কেটে ফেলা হচ্ছে, পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে আমরা বাঁচবো কি করে।

সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পের সমালোচনা করে তারা আরও বলেন, যে প্রকল্প জীবনকে বিপন্ন করে তা কখনোই উন্নয়ন হতে পারেনা। আমরা তো প্রকল্পের বিরোধিতা করিনি৷ আমরা বলেছি, গাছগুলোকে রক্ষা করে প্রকল্পের পরিকল্পনা সংশোধন করতে। যাতে দুই ঠিক থাকে। কিন্তু তারা আমাদের কথা শুনবে না। কারণ ভেতরকার খবর আমরা জানি। এখানে প্রকল্প মানেই লক্ষ-কোটি টাকার খেলা। একটি প্রকল্প পাশ করাতে পারলেই অনেকের পকেট ফুলেফেঁপে উঠবে। রক্ষক হয়ে ভক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়া বিআইডব্লিউটিএ কে একদিন কঠিন শান্তির মুখোমুখি হতে হবে। প্রাণ-প্রকৃতির বিরুদ্ধে গিয়ে কোন কাজই শেষমেশ ভালো হয় না।