বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে আটক ৫ : মুক্তি পেলেন সাখাওয়াত

সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি :

নারায়ণগঞ্জে বিএনপি সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনায় আটক মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।

মুক্তি পেয়ে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, ‘আমাদের শান্তিপূর্ণ অবস্থান কর্মসূচিতে পুলিশ কোনো কারণ ছাড়াই লাঠিচার্জ, টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ ও গুলিবর্ষণ করে। আমাদের বহু নেতাকর্মী এতে আহত হন। আমাকেও মারধর করে পুলিশ। পরে আমাকেসহ পাঁচজনকে আটক করে নিয়ে এলেও এখন ছেড়ে দিয়েছে। বাকিদেরও ছেড়ে দেবে বলে পুলিশ বলেছে।’

নারায়ণগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) মো. আমির খসরু বলেন, কাউকে গ্রেফতার করা হয়নি; কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল শুধু। বিএনপির আটক বাকি নেতাদেরও খুব শিগগির মুক্তি দেওয়া হবে।

এর আগে, বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বিএনপির নেতাকর্মীরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সিদ্ধিরগঞ্জের চিটাগাংরোড এলাকায় জড়ো হতে চাইলে পুলিশ তাদের লাঠিচার্জ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এসময় বিএনপি নেতাকর্মীরা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে পুলিশ রাবার বুলেট ও টিয়ারগ্যাস নিক্ষেপ করে। এসময় বিএনপির পাঁচ নেতাকে আটক করা হয়।

আটকদের মধ্যে ছিলেন মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান, সদর থানা বিএনপির সভাপতি আনোয়ার প্রধান, মহানগর যুবদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক সাগর প্রধানসহ পাঁচজন।

আটক ও বিএনপির নেতাকর্মী আহতের বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবু আল ইউসুফ খান টিপু বলেন, কেন্দ্র ঘোষিত শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে পুলিশ আমাদের উদ্দেশ্য করে টিয়ারসেন এবং গুলি ছুড়েছে । তারা আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে বাধা দিয়ে মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান, নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক সাগর প্রধান, সদর থানা বিএনপির সভাপতি আনোয়ার প্রধান সহ পাঁচ জনকে আটক করেছে। এছাড়া পুলিশের হামলা বিএনপির অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে।