বারের সভাপতির বিরুদ্ধে জমি দখলের চেষ্টা সহ হয়রানির অভিযোগ

নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি হাসান ফেরদৌস জুয়েলের বিরুদ্ধে জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। এ কাজে সহযোগীতা করছেন ভুক্তভোগির আপন দুই ভাই। তবে আইনের সহযোগীতা নিয়েও শেষ আশ্রয় টুকু রক্ষা করতে পারছে না ভুক্তভোগী। তাই বাধ্য হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহযোগীতা চাইছেন।

নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের মিলনায়তনে মঙ্গলবার (২৬ ডিসেম্বর) বিকালে সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা জানান ভুক্তভোগী রুমান ও তার স্ত্রী জোছনা। পাশে ছিল তার দুই শিশু সন্তান।

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার মাসদাইর মৌজায় সাড়ে ৬ শতাংশ জমি রেখে মারা যায় চাঁন মিয়া ও মাসুদা বেগম দম্পতি। ওয়ারিশ সূত্রে এ সম্পত্তির মালিক ৩ পুত্র ও ২ মেয়ে।

ভুক্তভোগী রুমান ও তার স্ত্রীর অভিযোগ, তাঁর দুই ভাসুর চঞ্চল ও রুবেলসহ দুই ননদ মিলে সম্প্রতি তাদের বাড়ি থেকে বের করে দেওয়ার যড়ষন্ত্র শুরু করেন। তারা এক পর্যায়ে গোপনে বাড়ি বিক্রি করতে চাইলে দেওয়ানী আদালতে মামলা করেন রুমান (মামলা নং-১১২/২০)। তাদের বিবাদী পক্ষের উকিল হয়েছেন এড. হাসান ফেরদৌস জুয়েল। মামলাটিতে প্রাথমিক ডিগ্রি পান রুমান। কমিশনে আসাদুজ্জামান লিটন গিয়ে যে ভাবে জমিটি ভাগ করে দেন, সেটা থাকার উপযোগী না হওয়ায় উচ্চ আদালতে রিভিশন মামলা করেন তারা। সেখানেও রায় পান তারা। কিন্তু আসাদুজ্জামান লিটন হাসান ফেরদৌস জুয়েলের সঙ্গ নিয়ে আবারও ৬ ফিট পাশ ও ৬৬ ফিট লম্বা জমি ভাগ করে দেন। ২৭ আগস্ট না জানিয়ে কমিশন রির্পোট দাখিল করেন। এর বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করেন তারা।

মামলাটি এখনও চলমান।রুমানের স্ত্রী জোছনা বলেন, ম্যাজিস্ট্রেট পরিচয়ে বিনা নোটিশে গত ২৯ নভেম্বর আমাদের বাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে। এতে আমার ঘরে রাখা সাড়ে ৮ ভরি স্বর্ণের গহনা ও ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা খুঁজে পাচ্ছিনা। বাড়ির মিটার ও পানির মটর পর্যন্ত খুলে নিয়ে গেছে। এই বাড়ি কিনেছে দাবি করে এড. হাসান ফেরদৌস জুয়েল রাতের আধাঁরে কিছু সন্ত্রাসীদের নিয়ে মূল গেইটে তালা দিয়েছে। মিথ্যা মামলার হুমকি দিচ্ছেন। তিনি বলছেন, আমি দাঁড়ালে কেউ আদালতে আসবে না। আদালত দিয়েই তোমাদের শিক্ষা দিবো।জোছনা কান্না করে বলেন, উপরে আল্লাহ আর নিচে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া কেউ আমার বাড়ি রক্ষা করতে পারবে না। আমি আমাদের শেষ আশ্রয় টুকু রক্ষার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমানের সু-দৃষ্টি কামনা করছি।