দর্শক সংকটের মধ্যে ঈদে চাঙ্গা সিনেমা হল, সিনেস্কোপ মাতাচ্ছে সুরঙ্গ

দর্শক সংকটের মধ্যে ঈদে চাঙ্গা সিনেমা হল, সিনেস্কোপ মাতাচ্ছে সুরঙ্গ

স্টাফ রিপোর্টারঃ

দর্শক সংকটের মধ্যে অনেকটা খুঁড়ে খুঁড়ে চলছে নারায়ণগঞ্জের সিনেমা হলগুলো। এই সংকটের মধ্যে পবিত্র ঈদুল আজহা থেকে নারায়ণগঞ্জ শহরের তিনটি সিনেমা হলের প্রেক্ষাগৃহে শুরু হয়েছে “সুরঙ্গ”, “প্রিয়তমা” ও “ক্যাসিনো” সিনেমা। আফরান নিশো ও তমা মীর্জা জুটির প্রথম সিনেমা সুড়ঙ্গ চলছে সিনেস্কোপে। শাকিব খান ও ইধিকার ‘প্রিয়তমা’ সিনেমা চলছে মেট্রো সিনেমা হলে। এছাড়া গুলশান সিনেমা হলে ঈদে চলছে নিরব ও বুবলির ‘ক্যাসিনো’ সিনেমা।

সিনেমা হল তিনটি ঘুরে দেখা যায়, ঈদের নতুন সিনেমা দেখতে দর্শকদের ভিড় দেখা গেছে। বিশেষ করে সিনেস্কোপে সবচেয়ে বেশি ভীড় দেখা গেছে। ফলে সিনেস্কোপের মালিকপক্ষ বেশ সন্তুষ্ট প্রকাশ করেছেন। তবে ঈদের সময় ব্যতীত দর্শক সংকটের কথা জানিয়েছেন অন্য সিনেমা হল কর্তৃপক্ষ।

শহরের ডিআইটি এলাকায় আলী আহম্মদ চুনকা পাঠাগার নগর ভবনে অবস্থিত জেলার একমাত্র ‘সিনেস্কোপ’। হলের নির্বাহী পরিচালক মো. রবি বলেন, এবার ঈদে আফরান নিশো ও তমা মীর্জা জুটির প্রথম সিনেমা সুড়ঙ্গ সিনেমাটি চলছে। ঈদের আগে থেকে সিনেমাটির আগাম টিকিট বিক্রি হয়েছে। দ্বিতীয় সপ্তাহের অনেক টিকিট বিক্রি হয়েছে।সিনেমাটি দর্শকদের মাঝে বেশ সাড়া পেয়েছে। এই সিনেমার আগে পাঠান সিনেমা চলেছে সিনেস্কপে।

রুচিশীল সিনেমা ও সিনেস্কোপে উন্নতমানের পরিবেশের ফলে দর্শক চাহিদার শীর্ষে রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই জেলার একমাত্র সিনেস্কোপটি ২০১৯ সালে চালু হলেও জেলার অনেকগুলো সিনেমা হল বন্ধ হয়ে গেছে। আমার মনে হয়, সিনেমা হলের পরিবেশের বিষয়টি সবার আগে বিবেচনা করে সিনেমা প্রেমিরা। এছাড়া রুচিশীল সিনেমা তাদের কাছে বেশ প্রাধান্য পায়।

সিনেস্কোপ থেকে বের হয়ে সড়কের বিপরীত দিকে রয়েছে গুলশান সিনেমা হল। হলের ম্যানেজার তপন দে বলেন, গুলশান সিনেমা হলে ঈদে নিরব ও বুবলির ‘ক্যাসিনো’ সিনেমা চলছে।

শহরের খানপুর এলাকার নিউ মেট্রো সিনেমা হলের মালিক সাইদুর রহমান বাংলার নারায়ণগঞ্জ কে বলেন, শাকিব খান ও ইধিকার ‘প্রিয়তমা’ সিনেমা চলছে মেট্রো সিনেমা হলে। ঈদে একটু দর্শক বেড়েছে। তবে এই ব্যবসার অবস্থা ভালো না। দর্শক সংকটে ধুঁকে ধুঁকে চলছে হলগুলো। অনেক সময় খরচের টাকাও উঠেনা, লোকসান গুণতে হয়। ঈদের আগে ফিরেদেখা সিনেমা দেখানো হয়েছে। তবে দর্শক হয়নি। এখন দর্শক সংকটের ফলে একটা শো চালাতে হিমসিম খেতে হয়।

দর্শক সংকটে গত এক যুগে প্রায় ডজন খানেক সিনেমা হল বন্ধ হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘রূপালী, রংধনু, মুনলাইট, রাজমহল, সম্রাট, লাইট হাউজ, ফিরোজ মহল, সুরুজ মহল, আশা, মাশার ও হংস সিনেমা হল বন্ধ হয়েছে। তবে ফতুল্লা-পঞ্চবটি বিসিক এলাকার বনানী সিনেমা হল চালু থাকলেও সেটি খুঁড়ে খুঁড়ে চলছে।