গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যা, তিন আসামির যাবজ্জীবন

আদালত
আদালত

নারায়ণগঞ্জের বন্দরে এক গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে তিন জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। রবিবার (৩১ মার্চ) বিকেলে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক নাজমুল হক শ্যামল এ রায় দেন। তবে রায় ঘোষণার সময়ে তারা অনুপস্থিত ছিলেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন – বন্দন উপজেলার পূর্বপাড়া গ্রামের ওমর খাঁয়ের ছেলে ফারুক, একই উপজেলার হরিবাড়ী এলাকার মুমিন মিয়ার ছেলে মো. মুন্না ওরফে টুকুন ও ত্রিবেনী গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের ছেলে আমজাদ হোসেন। 

বিষয়টি নিশ্চিত করে আদালত পুলিশের পরিদর্শক মো. আসাদুজ্জামান  বলেন, ওই নারীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর হত্যা ও লাশ গুম করার মামলায় আদালত তিন আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন। রায় ঘোষণার সময়ে আসামিরা অনুপস্থিত ছিলেন।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭ সালের ২১ এপ্রিল সকালে ওই গৃহবধূ তার স্বামীর বাড়ি থেকে ছোট বোনের বাড়িতে বেড়াতে যায়। রাত ৭ টার দিকে সেখান থেকে রিক্সা যোগে বাড়ি পথে নিখোঁজ হয় ওই গৃহবধু। নিখোঁজের সাত দিন পর ২৭ এপ্রিল বন্দরেন ত্রিবেনী এলাকায় একটি ডোবা থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে বন্দর থানায় মামলা করেন। পুলিশি তদন্তে বেড়িয়ে আসে সাজা প্রাপ্ত আসামীদের মধ্যে ফারুকের সঙ্গে বিয়ের আগে প্রেমের সর্ম্পক ছিলো গৃহবধুর। ঘটনার দিন শ্বশুর বাড়িতে যাওয়ার পথে রাস্তায় ফারুকের সঙ্গে দেখা হয় তার। পরে রাস্তা থেকে ফারুকসহ তার দুই সহযোগি তাকে ত্রিবেনী এলাকায় নিয়ে যায়। সেখানে কথা বলার ছুলে গৃহবধুকে আটককে রাখে। এরপর পলাক্রমে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ হত্যা করে লাশ ডোবায় ফেলে দেয়। পরবর্তীতে আসামিরা গ্রেপ্তারের পর আদালতে স্বিকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান করে।