ওরা পাঁচ হাজার আর আমি একা, দৌড়াতে দৌড়াতে পানিতে নামাবো : শামীম ওসমান

ফতুল্লা প্রতিনিধি :

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য এ কে এম শামীম ওসমান বলেছেন, ‘আপনাদের কারণে আমার বুকে এতো সাহস আছে। কাপুরুষের মতো বোম মারলে কিছু করার নেই। কিন্তু ওরা যদি এমনি আসে। ওরা পাঁচ হাজার আর আমি একা নামবো। ওই পাঁচ হাজার কে দৌড়াতে দৌড়াতে পানিতে নামাবো, ইনআল্লাহ। আমেরিকায় একবার চেষ্টা করেছিল। সেখানে ওরা ছিল দেড় দুইশ আর আমি সেখানে একা ছিলাম। ওই দেড় দুইশর মধ্যে কিছু দিয়েছে দৌড় আর কিছু মাটিতে পড়েছিল। মুক্তিযোদ্ধার সন্তান আমার কলিজায় জোড় আছে।

মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) রাতে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা দেলপাড়া মীরকুঞ্জ পার্টি সেন্টারে এক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানকে চোর বলে সম্মোধন করে তিনি বলেন, ওই তারেক রহমান চোরায় চোর চিনে। চোর চিনে প্রকৃত পক্ষে যারা বিএনপি করতো তাদেরকে লাথি দিয়ে সরিয়ে দিয়েছে সাইড লাইনে দিয়ে দিয়েছে। এমন লোককে আনছে যে ওই কাজটা করতে পারবে। কিছুদিন আগে ডুবাইতে এক জঙ্গির সাথে মিটিং হয়েছে। আমরা জানি তারা জামায়াতের সাথে আতাত করেছে। কি করবে, নারায়ণগঞ্জে ভায়োলেন্স করবে। বারাবারি বেশি কইরেন না। বারাবারি বেশি করলে, জনগণ যদি নির্দেশ দেয় এবার কিন্তু রক্ষা পাবেন না। রাজনীতি করতে চান রাজনীতি করেন । নারায়ণগঞ্জে গত ছয় মাস ধরে দেখছি কিছু বলছিনা। আমি তাদেরকে চুপ থাকতে বলেছি।

বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় আসবে পারবেনা উল্লেখ করে তিনি বলেন, কিছুদিন আগে আমি বলেছিলাম বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতার চারশ মাইলের ভেতরে আসতে পারবেনা। আজকে ফাইনাল বলি বায়ান্নো হাজার বর্গকিলোমিটারের ভেতরে আসতে পারবেনা। এটা আমি আল্লাহর ওপরে ভরসা রেখে বলছি।

বিএনপি দলকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত আপনারা আমাদের ওপরে যে জুলুম করেছেন। আমরা কিন্তু মানুষ, রোবট না। আমাদের মনে করিয়ে দিনেন না। ১৪ বছর ধরে আমরা ক্ষমতায় আছি, কাউকে ফুলের টোকা দেইনি। কাউকে আঘাত করিনি। ওই যে একটা পলিটিকাল প্রস্টিটিউট হয়েছে। সে একবার করে আওয়ামী লীগ তারপর গেল জাতীয় পার্টিতে পরে বিএনপি হয়ে আবার আওয়ামী লীগ আবারও বিএনপিতে গেছে। এটা কোন আদর্শ। এই আদর্শের নাম কি। রাজনীতিক ভাষায় এদেরকে বলা হয় পলিটিক্যাল প্রস্টিটিউট। অর্থাৎ রাজনৈতিক বেশ্যা। অর্থাৎ যাদের কোন চরিত্র থাকেনা।

২০৪০ সালে বাংলাদেশ পৃথিবীর ধনী ১০টি দেশের মধ্যে একটি হবে বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী বসে আছেন, আর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী তার সামনে পা গেড়ে বসে আছেন। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট সেলফি তুলছেন। সৌদি আরব কথা বলছে। দুবাই কথা বলছে। কেন? কারণ জাতির পিতার কন্যা পৃথিবীকে বুঝিয়ে দিয়েছেন, বাংলাদেশ এখন নিজের পায়ের উপরে ভর দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। অর্থনীতিবিদরা বলছে, সারা বিশ্বের এই অস্থিরতার মধ্যেও ২০৪০ সনে আল্লাহর হুকুমে পৃথিবীর ১০টি ধনী দেশের মধ্যে বাংলাদেশ একটা হবে।

ঘণ্টা বাজানোর কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই নারায়ণগঞ্জ থেকে পূর্বপুরুষরা শুরু করেছে। আওয়ামী লীগের সৃষ্টি, বায়ান্নো বাষট্টি ছিষট্টি ঊনসত্তর। তাই আমরা একটু শুরু করতে চাই। এই শুরু করার জন্য একটা ঘন্টা বাজাতে হয়। আমরা এই ঘন্টা বাজাবো। যদি দেশকে ভালোবাসেন পরাধীনতা না চান সেটা আপনার ব্যাপার। স্বাধীনভাবে মাথা ‍উচু করে বাচবো নাকি মাথা নিচু করে গোলামের মতো বাচবো সেটাও আপনার ব্যাপার। আমি আশা করবো আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা যেন সেদিন ঘরে না থাকেন। জনগণকে সাথে নিয়ে লাখো লাখো লোকের সমাবেশ যাতে সেখানে হয়।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান চন্দন শীল, কাশিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম সাইফুল্লাহ বাদল, বক্তাবলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ফতুল্লা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী সহ প্রমুখ।