অভিমানে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে তরুণের আত্মহত্যা

অভাবের তাড়নায় স্ত্রীর ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা

বাবার সাথে অভিমান করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে নাছিম খান বাবু (১৯) নামে এক তরুণ আত্মহত্যা করেছে। মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে শিমরাইল বৌবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত নাছিম খান বাবু সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল বৌবাজার এলাকার আব্দুল মান্নানের ছেলে। ওই এলাকায় আব্দুর রহিমের ভাড়া বাড়িতে বাবা-মায়ের সাথে বসবাস করতেন। তিনি ও তার বাবা পুষ্টি সয়াবিন মিলে শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন।

মৃত্যুর আগে ওই তরুণ তার নাসিম খান নামের ফেসবুক আইডি থেকে স্ট্যাটাস দিয়ে আত্মহত্যার কথা জানিয়েছেন। সেখানে লিখেছেন, “আমার শেষ কথা, আমার বাবা আমাকে চোর ভাবে তাই আমি আর বেঁচে থাকতে চাই না, নিজের উপর চোরের অপরাধ নিয়ে আমি কি করবো, তাই আমি এখন মরতে চাই, আমি আমার গলায় দরি দেবো।”স্ট্যাটাসে আরও লিখেছেন, ‘ফাঁসি’! সবাই আমাকে মাফ করবেন। আমার মাকে কেউ বলবেন, আমার মাকে শেষ বার দেখার অনেক ইচ্ছা করছিলো।”

নিহতের পিতা আব্দুল মান্নান বলেন, প্রতিদিনের মতো আমি কাজে যাই। আজকেও কাজে থেকে দুপুর ১২টার দিকে বাসায় খেতে এসে দেখি আমার ছেলে নাছিম ঘরের বাঁশের আড়ার সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঝুলে আছে। প্রায় সময় আমি ছেলেকে শাসন করতাম। তবে সম্প্রতি তার সাথে আমার কোন ঘটনা নিয়ে বিরোধ হয়েছে বলে মনে পড়েনা।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সালেকুজ্জান বলেন, ৯৯৯-সেবায় কল পেয়ে সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল বৌবাজার এলাকায় ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি এক তরুণ নিজ ঘরের বাঁশের আড়ার সাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। তাৎক্ষণিক নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ ভিক্টোরিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নিহতের বাবা ছেলেকে কোন একটি ঘটনার জের ধরে শাসন করেছে। এতে ওই তরুণ বাবার ওপরে অভিমান করে এই ঘটনা ঘটিয়েছে।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু বকর সিদ্দিক বলেন, জাতীয় জরুরী সেবা ৯৯৯ এ ফোন পেয়ে পুলিশ দিয়ে তার লাশ উদ্ধার করেছে। ওই তরুণ বাবার সাথে অভিমান করে আত্মহত্যা করেছে।